হোমবলিউড

ধর্ষণে অভিযুক্ত সুভাষ ঘাই বলেন, মি টু আন্দোলনে তিনি ব্যাথিত

ধর্ষণের অভিযোগের প্রেক্ষিতে মি টু আন্দোলনকে তিনি ফ্যাশন বলে উড়িয়ে দিয়েছেন

  | October 12, 2018 12:23 IST (New Delhi)
Subhash Ghai

মুম্বইয়ে একটি অনুষ্ঠানে সুভাস ঘাই

Highlights

  • ‘‘নিয়তি ভাল খারাপ দু’রকেমর দিনই দেখায়’’— বলছেন সুভাষ ঘাই
  • বহু বছর আগে সুভাষ ঘাই এক মহিলাকে ধর্ষণ করেন বলে অভিযোগ
  • অভিযোগ অস্বীকার করেছেন সুভাষ

বেশ কিছু বছর আগে এক মহিলার পানীয়ে রাসায়নিক মিশিয়ে তাকে ধর্ষণের অভিযোগ ওঠে পরিচালক সুভাষ ঘাইয়ের বিরুদ্ধে। তিনি শুক্রবার টুইট করেন, ‘‘এই আন্দোলনে আমাকে অভিযুক্তের তালিকায় রাখা হয়েছে। এতে আমি খুবই দুঃখ পেয়েছি।’’ ৭৩ বছরের ওই সিনেমা নির্মাতা তার বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ আস্বীকার করে বলেন, ‘‘নিয়তি ভাল খারাপ দু’রকমের দিনই দেখায় কিন্তু যারা আমাকে চেনেন তারা জানেন আমি মেয়েদের কতটা সম্মানের চোখে দেখি।’’ ধর্ষণের অভিযোগের প্রেক্ষিতে মি টু আন্দোলনকে তিনি ফ্যাশন বলে উড়িয়ে দিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার মহিমা কুকরেজা ন‌ামে এক মহিলা অন্য এক অখ্যাত মহিলার টুইট রি শেয়ার করেন। সেই মহিলা লিখেছেন, সুভাষ ঘাই ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে তার মেন্টর হবেন প্রতিশ্রুতি দিয়ে হোটেলের ঘরে নিয়ে যান। তার পরে তার পানীয়ে কিছু মিশিয়ে তাকে ধর্ষণ করেন। সুভাষ অভিযোগ অস্বীকার করে পিটিআইকে বলেন, ‘‘অনেক দিন আগের কোনও গল্প ফেঁদে কাউকে অসম্মানিত করার চেষ্টাটা একটা ফ্যাশনে পরিণত হয়েছে। আমি এ ধরনের মিথ্যা অভিযোগ অস্বীকার করছি।’’

সার্ভাইভার নিজের লেখায় অভিযোগ করেছেন, সুভাষ তাকে জবরদস্তি চুম্বন ও অশালীন ভাবে হাত দেন। তিনি তখন সুভাষ ঘাইয়ের সঙ্গে কাজ করছিলেন, এবং সুভাষ তাকে মাঝেমধ্যেই নৈশ পার্টি ও কাজের জন্য নিজের দু’কামরার ফ্ল্যাটে ডাকতেন। সেই বাড়িটি ছিল সুভাষের কাজের জায়গা যাকে তিনি ‘থিঙ্কিং প্যাড’ বলতেন।


পিটিআই-কে সুভাষ বলেন, ‘‘এ সব অভিযোগ প্রমাণ করতে হলে কোর্টে যেতে হবে। তবে আমি জানি উনি এ সব কিছুই প্রমাণ করতে পারবেন না।’’


ইতিমধ্যেই মি টু আন্দোলনের জেরে অনেক ভারতীয় সেলিব্রিটির নামে কদর্য অভিযোগ সামনে এসেছে। অলোকনাথ, নানা পাটেকর, কৈলাশ খের, রজত কাপুর, বিকাশ বহেল প্রমুখের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে। ইন্ডাস্ট্রির কেউ কেউ ইতিমধ্যেই অভিযুক্তদের সঙ্গে দূরত্ব বাড়াতেও শুরু করেছেন।

ইতিমধ্যে মঙ্গলবার আমির খান ও কিরণ রাও ঘোষণা করেন, দলের এক সদস্যের অভব্য আচরণের জন্য তারা কাজ থেকে পিছিয়ে আসছেন। সেই সদস্য সম্ভবত সুভাষ কাপুর, যার বিরুদ্ধে অভিনেত্রী গীতিকা ত্যগিকে শ্লীলতাহানির অভিযোগ উঠেছিল ২০১৪ সালে। প্রযোজক ভূষণ কুমার ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে বলেন, সুভাষ কাপুর আর গুলশন কুমারের বায়োপিক মোগুল পরিচালনা করছেন না।


বাংলা ভাষায় বিশ্বের সকল বিনোদনের আপডেটস তথা বাংলা সিনেমার খবর, বলিউডের খবর, হলিউডের খবর, সিনেমা রিভিউস, টেলিভিশনের খবর আর গসিপ জানতে লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা ফলো করুন Twitter আর সাবস্ক্রাইব করুন YouTube
 
Advertisement
Advertisement