হোমবলিউড

অলোকনাথের মধ্যে রয়েছে ডক্টর জেকিল ও মিস্চার হাইড, বলছেন হিমানী শিবপুরী

# MeToo: অলোকনাথের মধ্যে যে ডক্টর জেকিল ও মিস্টার হাইড পার্সোনালিটি এক সাথে রয়েছে তা সকলেই জানেন। অ্যালকোহল পেটে পড়লেই অলোকনাথ অন্য মানুষ।

  | October 12, 2018 14:13 IST (New Delhi)
Alok Nath

# MeToo: ‘‘এটা ঘটে থাকলে খারাপ হয়েছে।’’

Highlights

  • তিনি বলেন, ‘‘মদ খেলে ওর মধ্যে ডক্টর জেকিল মিস্টার হাইড পার্সোনালিটি হত
  • ‘‘উনি পুরো বদলে যেতেন’’-বলছেন হিমানী
  • তিনিও খুব খারাপ অভিজ্ঞতার মধ্যে দিয়ে গিয়েছেন

হিমানি শিবপুরী যিনি অলোকনাথের সঙ্গে একাধিক সিরিয়ালে কাজ করেছেন, তিনি সংবাদসংস্থা পিটিআই কে এক ইন্টারভিউয়ে জানান, অলোকনাথের মধ্যে যে ডক্টর জেকিল ও মিস্টার হাইড পার্সোনালিটি এক সাথে রয়েছে তা সকলেই জানেন। অ্যালকোহল পেটে পড়লেই অলোকনাথ অন্য মানুষ। হিমানী শিবপুরী অলোনাথের সঙ্গে হাম সাথ সাথ হ্যায়, পরদেশ, কভি খুশি কভি গম সিনেমা এবং ঘর এক স্বপ্না নামে টিভি সিরিয়ালেও (২০০৭--২০০৯) কাজ করেছেন। তিনিও বলেন, ‘‘মদ্যপান করলে অলোকনাথ একেবারে বদলে যেতেন।’’ যদিও একাধিক একই ধরনের চরিত্রে অভিনয় করায় অলোকনাথ ‘সংস্কারী বাপু’ ইমেজ তৈরি করে রেখেছিলেন। কিন্তু আদতে তিনি একাধিক #মি টু-এর ঘটনার পিছনে দায়ী, এমনই দাবি তার ৯০ এর দশকে অভিনীত তারা সিরিয়ালের লেখিকা বিনিতা নন্দের।

হিমানী শিবপুরী বলেন, ‘‘যদি উনি এটা করে থাকেন তা হলে খুব অন্যায় করেছেন। কোনও মহিলাকে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোর করা অনুচিত। এটা নহিলাদের জন্য খুব কষ্টের।’’ পিটিআই-কে হিমানী বলেন, ‘‘দিনের বেলা শুটিংয়ে উনি সব সময়ে স্বাভাবিক থাকতেন। কিন্তু মদ খাওয়ার পরেই উনি ওঁর মধ্যে ডক্টর জেকিল মিস্টার হাইডের মতো দুটো পার্সোনালিটি দেখা যেত। উনি পুরো অন্য মানুষ হয়ে যেতেন। সহকর্মীরাই বলতেন তখন ওঁর সঙ্গে কাজ করা মুশকিল হত।’’

হিমানী পিটিআই-কে বলেন, তিনি একবার ফ্লাইটে অলোকনাথের এমন ব্যবহারের সম্মুখীন হয়েছিলেন। ‘‘একবার আইটিএ অ্যাওয়ার্ডের জন্য আমরা দুবাই যাচ্ছিলাম। অলোকনাথ মদ্যপান করেছিলেন। ফলে ওর ব্যবহারে আমি বিরক্ত হচ্ছিলাম, ওর স্ত্রী-ও বিব্রত ছিলেন। একবার বিমানে খোলা স্থানে প্রস্রাব করা এবং দুর্ব্যবহারের জন্য ওকে বিমান থেকে নামিয়ে দেওয়া হয়েছিল। মিডিয়াই ওর ইমেজ সম্পর্কে জানতে না। ইন্ডাস্ট্রির সকলেই এ কথা জানেন।’’


হিমানীর মতোই প্রায় একই কথা বলছেন ‘তারা’র অভিনেতা দেবেন ভোজানি। তিনি জুম টিভিকে বলেন, ‘‘অলোকনাথের মদ্যপ অবস্থায় ব্যবহারের কথা তাঁর কানেও এসেছে।’’


ফেসবুকে বিনিতা নন্দের অভিযোগের পরে অভিনেত্রী সন্ধ্যা মৃদুল, দীপিকা আমিন এবং হাম সাথ সাথ হ্যায়ের আরও এক অভিনেত্রী অলোকনাথের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনেছেন। সিনটার তরফে তাকে শো কজের নোটিস পাঠানো হয়েছে। অলোকনাথ এবিপি নিউজকে বলে‌ন, ‘‘তিনি এ অভিযোগ স্বীকার বা অস্বীকার কোনওটাই করছেন না।’’ দু’সপ্তাহ আগে বিনিতা নন্দ ফেসবুকে অভিযোগে লেখেন, ১৯ বছর আগে অলোকনাথ কী ভয়ঙ্কর ভাবে তাকে ধর্ষণ করেন এবং তার পরে কাজ পাওয়ার ক্ষেত্রে সমস্যা সৃষ্টি করেন।

হিমানী শিবপুরী এ প্রসঙ্গে তনুশী দত্তের প্রসংশা করে বলেন, ‘‘তনুশ্রী ও বিনিতা এত দিন পরে হলেও মুখ খুলেছেন এটা প্রসংশনীয়। আসলে মহিলারা সহজে লক্ষ্য হয়ে যান। কারণ সমাজ সহজেই তাদের দিকে আঙুল তোলে। তখন বিষটা এত সহজ ছিল না, তাই বিনতা এত বছর পরে মুখ খুলতে পেরেছেন।’’

তিনি কি কখনও হেনস্থার শিকার হয়েছেন? উত্তরে হিমানী বলেন, ‘‘উপযুক্ত সময় এলে সব জানাবো। তারা সকলেই এখনও বর্তমান। আমার কেরিয়ারের শুরুতেও এমন ঘটনা ঘটেছিল।’’


বাংলা ভাষায় বিশ্বের সকল বিনোদনের আপডেটস তথা বাংলা সিনেমার খবর, বলিউডের খবর, হলিউডের খবর, সিনেমা রিভিউস, টেলিভিশনের খবর আর গসিপ জানতে লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা ফলো করুন Twitter আর সাবস্ক্রাইব করুন YouTube
 
Advertisement
Advertisement