হোমরিভিউস

রিভিউ সোয়েটার: নক্সা ভালো কিন্তু ঠাস-বুনোট হল কি?

  | March 31, 2019 12:43 IST (কলকাতা)
Sweater

'সোয়েটার'-এর পোস্টারে ইশা সাহা।

বাংলা ছবির চিরাচরিত ঘরানা থেকে বেরোনোর জন্য পরিচালকের সাহসী পদক্ষেপ কুর্নিশযোগ্য।

পরিচালক- শিলাদিত্য মৌলিক
অভিনয়- ইশা সাহা, সৌরভ দাস, ফারহান ইমরোজ, শ্রীলেখা মিত্র, খরাজ মুখোপাধ্যায়, জুন মাল্য, সিদ্ধার্থ শঙ্কর রায়
রেটিং- ৩/৫

সাধারণ মধ্যবিত্ত পরিবারের বাবা মায়ের একটাই চিন্তা- মেয়ের বিয়ে। আর সে মেয়ের যদি রূপ-গুণের কোনও ঘাটতি থাকে তাহলে তো কথাই নেই। পাড়া-প্রতিবেশী থেকে শুরু করে মা বাবাও যেন সেই মেয়েকে দু'বেলা কথা শোনাতে ছাড়ে না। এমনই এক সাধারণ মধ্যবিত্ত পরিবারের মেয়ে টুকু। টুকু স্মার্ট নয়, ফর্সা নয়, না আছে কোনও গুণ- এসব শুনতে শুনতেই সে বড় হয়েছে। সেখানে তার বোন শ্রী সর্বগুণসম্পন্না, সে কারণে বাবা মায়ের একটু বেশিই প্রিয় সে। এহেন অবস্থায় টুকুর জন্য কলকাতার এক উচ্চবিত্ত পরিবারের থেকে বিয়ের সম্বন্ধ আসে। ছেলে চার্টার্ড অ্যাকাউন্টেন্ট। শর্ত শুধু মেয়েকে সোয়েটার বুনতে জানতে হবে। মেয়ের হিল্লে হবে ভেবে টুকুর মা বাবা শোনা ইস্তক লুফে নেয় সে প্রস্তাব। তারপর টুকুকে উল বোনা শেখাতে তাঁরা হাজির হন দার্জিলিং, টুকুর পিসির বাড়িতে। এই পর্যন্ত গল্পটা আমরা সবাই জানি। সব কিছু ঠিকঠাকই হতে পারতো। কিন্তু গল্পের প্রথম অংশটুকু যেন বড্ড ধীর গতিতে এগিয়েছে বলে মনে হয়েছে। চরিত্রায়ণ সার্থক করতে গিয়ে চরিত্ররা যেন বড্ড বেশি কথা বলেছে বলে মনে হয়েছে কিছু কিছু অংশে। কন্যাদায়গ্রস্ত বাবার ভূমিকায় খরাজ মুখোপাধ্যায়ের অভিনয় বেশ ভালো, বিশেষত ছবির দ্বিতীয়ভাগে। কিন্তু মায়ের ভূমিকা তেমন উল্লেখযোগ্য নয়। আর শুরুতে টুকু যেমন বলেছে, ছোট বোন মা বাবার বেশি আদরের, গোটা ছবিতে সে কথা কিন্তু একবারও মা বাবার আচরণে মনে হয় নি। 

আরও পড়ুন: রিভিউঃ 'গুগলি'তে নিশ্চিত উইকেট পাচ্ছেন অভিমন্যু


সোয়েটার আসলে এক অতি সাধারণ মেয়ের উত্তরণের গল্প। বিয়েটাই যে জীবনের মোক্ষ লাভের একমাত্র উপায় নয় সে কথাই বলতে চেয়েছেন পরিচালক। ১ ঘন্টা ৫৮ মিনিটের ছবির প্রথমার্ধ ঢিমে তালে এগোলেও দ্বিতীয়ার্ধ আর একটু বেশি সময়ের দাবি রাখে। তবে একথা অবশ্যই বলা ভালো, বাংলা ইন্ডাস্ট্রিতে এই ধরণের ছবি আগে হয়নি। বলিউডে কুইন হয়েছে। বাংলা ছবির চিরাচরিত ঘরানা থেকে বেরোনোর জন্য পরিচালকের সাহসী পদক্ষেপ কুর্নিশযোগ্য।


টুকুর ভূমিকায় ইশার অভিনয় বেশ ভালো লাগলেও তাঁকে অতি সাধারণ করে গড়ে তুলতে গিয়ে তাঁর কথায় 'চ'-এর টান রেখে দিয়েছেন পরিচালক। যা বেশ কিছু অংশে বড্ড কানে লেগেছে। সৌরভ, অনুরাধা, সিধু, জুন সকলেই ভালো অভিনয় করেছেন। শ্রীলেখা মিত্রের চরিত্রটি আলাদা করে দর্শককে ভাবাবে। ফারহান ইমরোজের বড় পর্দায় প্রথম কাজ। তাঁর অভিনীত সাম্য চরিত্রটির সঙ্গে শাহরুখ খান অভিনীত আমাদের অতি পরিচিত একটি চরিত্রের মিল পেতে পারেন।

01334jc8

ট্রেলারের একটি দৃশ্যে টুকু। (সৌজন্যে ইউটিউব)


সোয়েটার বুনতে গিয়ে প্রেম জড়িয়েছে ঠিকই। কিন্তু একেবারেই প্রেমের ছবি নয় সোয়েটার। গোটা সিনেমার দৃশ্যায়ণ বেশ ভালো। যাকে বলে 'আই সুদিং'। পরিচালক যে বার্তা দিতে চেয়েছেন তা প্রশংসার যোগ্য। কিন্তু সোয়েটারে যে ঠাস-বুনোটের প্রয়োজন ছিল তার খামতি রয়ে গেছে বলে মনে হয়েছে। যার জন্য কিছুটা দায়ী চিত্রনাট্য। সোয়েটারের গানের কথা বলতে হয়। রণজয় ভট্টাচার্যের সুরে প্রেমে পড়া বারণ সহ বিভিন্ন গান যেমন ভালো লেগেছে তেমনই ইমন চক্রবর্তীর কণ্ঠে ওরা সুখের লাগি চাহে প্রেম গানটার উপযুক্ত প্রয়োগ হয়েছে ছবিতে।

সব মিলিয়ে বলা যায়, 'তিন ঘর সোজা এক ঘর উল্টো' শুনে সোয়েটার বোনা যতটা সহজ মনে হয় তা আদতে নয়। তাই সোয়েটার গায়ে দিয়ে কতটা গা গরম হল তা না হয় আপনি ছবিটা দেখেই বিচার করবেন।





বাংলা ভাষায় বিশ্বের সকল বিনোদনের আপডেটস তথা বাংলা সিনেমার খবর, বলিউডের খবর, হলিউডের খবর, সিনেমা রিভিউস, টেলিভিশনের খবর আর গসিপ জানতে লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা ফলো করুন Twitter আর সাবস্ক্রাইব করুন YouTube
Advertisement
Advertisement