হোমমিউজিক

World Music Day 2019: সুরের মায়া মনে ছড়াতে শহর জুড়ে গানের আসর

  | June 21, 2019 12:18 IST
Music

স্বর্ণযুগে হেমন্ত মুখোপাধ্যায়, মান্না দে, মানবেন্দ্র মুখোপাধ্যায়, সন্ধ্যা মুখোপাধ্যায়, প্রতিমা বন্দ্যোপাধ্যায়, গীতা দত্ত মতো বহু শিল্পীর গান আনন্দে-উতসবে-ব্যথায় আমাদের আত্মার আত্মীয় ছিল। ছিলেন সলিল চৌধুরী, সুধীন দাশগুপ্তের মতো সুরকার, ভি বালসারার মতো মিউজিক অ্যারেঞ্জার, পুলক বন্দ্যোপাধ্যায়, গৌরীপ্রসন্ন মজুমদার, নচিকেতা ঘোষের মতো গীতিকার। যাঁদের প্রতিভায় বাংলা গানের দুনিয়া সমৃদ্ধ হয়েছে।

আজ সঙ্গীত দিবস (World Music Day)। গোটা একটা দিন সঙ্গীতের জন্য। যদি আমাদের সুখে গান ও সুর। দুঃখেও। ভালো-মন্দে, অবসরে, কাজের ফাঁকে গান আর সুরের বিকল্প আজও নেই। সারা দুনিয়ায় আজও মিউজিক বা সঙ্গীত এমন এক বন্ধু (Music Therapy) যে নীরবে আপনার সমস্ত সমস্যা মুছে দিতে পারে। আমাদের বাংলা গানের কথাই ধরুন না। স্বর্ণযুগে হেমন্ত মুখোপাধ্যায়, মান্না দে, মানবেন্দ্র মুখোপাধ্যায়, সন্ধ্যা মুখোপাধ্যায়, প্রতিমা বন্দ্যোপাধ্যায়, গীতা দত্ত মতো বহু শিল্পীর গান আনন্দে-উতসবে-ব্যথায় আমাদের আত্মার আত্মীয় ছিল। ছিলেন সলিল চৌধুরী, সুধীন দাশগুপ্তের মতো সুরকার, ভি বালসারার মতো মিউজিক অ্যারেঞ্জার, পুলক বন্দ্যোপাধ্যায়, গৌরিপ্রসন্ন মজুমদার, নচিকেতা ঘোষের মতো গীতিকার। যাঁদের প্রতিভায় বাংলা গানের দুনিয়া সমৃদ্ধ হয়েছে। একই ভাবে হিন্দি গানের ক্ষেত্রে নাম উঠে আসে মহম্মদ রফি, কিশোর কুমার, তালাত মেহমুদ, মুকেশ, লতা মঙ্গেশকর, আশা ভোঁসলে, শচীন দেববর্মন, রাহুল দেব বর্মন, শঙ্কর জয়কিষণ,লক্ষ্মীকান্ত-প্যায়ারেলা, রবীন্দ্র জৈনের মতো কণ্ঠশিল্পী, গীতিকার, সুরকারের। যাঁদের গান আজও রেডিওয়ে বাজলে মন্ত্রমুগ্ধের মতো কান পেতে শোনে এই প্রজন্মও। রিয়্যালিটি শো মানেই নতুন করে এঁদের গান পরিবেশন। এঁদের যোগ্য উত্তরসূরী কবীর সুমন, নচিকেতা চক্রবর্তী, অনুপম রায়, শ্রীকান্ত আচার্য, রূপঙ্কর বাগচি, ইমন চক্রবর্তী, কৌশিকী চক্রবর্তী, লোপামুদ্রা মিত্র, জয় সরকার, কুমার শানু, অলকা ইয়াগনিক, শ্রেয়া ঘোষাল, সোনু নিগম প্রমুখ। যাঁরা গানকে এভাবে এগিয়ে নিয়ে চলেছেন।

 Google Doodle Happy Summer 2019: আজ দীর্ঘতম দিন! সূর্যের উত্তরায়ণকে ডুডলে ধরল গুগল

ইদানীং চিকিৎসার জগতেও মিউজিক থেরাপি যথেষ্ট জনপ্রিয়। ডাক্তারদের মতে, এমন অনেক রোগ মিউজিক থেরাপিতে সারে যা অপারেশন বা ওষুধে সারে না। বিশেষ করে মানসিক সমস্যায় বা আঘাত কমাতে যথেষ্ট সাহায্য করে মিউজিক থেরাপি। বিদেশে এবং আমাদের দেশেও অনেক অপারেশন থিয়েটারে মিউজিক থেরাপির ব্যবস্থা রয়েছে। যা ডাক্তারবাবু এবং রোগী উভয়কেই মানসিক শান্তি এনে দেয়। এক সাক্ষাতকারে সুরকার শান্তনু মৈত্র, দেবজ্যোতি মিশ্রের মতো আন্তর্জাতিক সুরকারেরা জানিয়েছিলেন, গান জীবনের কথা বলে। গানের আরেক নাম তাই উজ্জীবন। ব্যথায়, বিদ্রোহে, বিপ্লবে----সবেতেই গান যোগ্য দোসর। গানের মতো শক্তিশালী প্রতিবাদী কণ্ঠস্বর আর হয় না। কণ্ঠ শিল্পী শৌনক চট্টোপাধ্যায়ের মতে, একমাত্র গানই পারে সমস্ত অসহিষ্ণুতা. সমস্ত বিদ্বেষ, সমস্ত জাতপাতের বেড়াজাল মুছে শান্তির পৃথিবী গড়তে। মানব সভ্যতা যেদিন থেকে তৈরি হয়েছে সেদিন থেকেই গান মানব জীবনের অপরিহার্য অঙ্গ।


hmrh86s8


এই দিনটিকে স্মরণ করতে আগামীকাল শহরে সন্ধেয় বসছে দুটি গানের আসর। সন্ধে সাতটা থেকে আটটা--- একঘণ্টার অনুষ্ঠানে ব্রিটিশ কাউন্সিল আয়োজন করছে মিউজিক্যাল ব্রিজ। সেখানে রবীন্দ্র গানের ইংরেজি ভার্সান দিয়ে সুরের জাল বুনবেন রোহিনী রায়চৌধুরী। পারকারসানে থাকবেন রাতুল শঙ্কর, সেতারে অভিষেক মল্লিক। এছাড়াও, বিশেষ সম্মান জানানো হবে পণ্ডিত রবি শংকরকে। 

International Yoga Day 2019: এবারের যোগ দিবসে বিশেষ নজর জলবায়ু পরিবর্তনের উপর

এছাড়া, কলকাতা সেন্টার ফর ক্রিয়েটিভিটিতে সন্ধে ছ-টা থেকে একঘণ্টার সান্ধ্য সঙ্গীতের আয়োজন করছে ফিউসন ব্যান্ড তান্ত্রিকস। দেশ-কালের সীমানা ছাড়িয়ে যে সুর, যে গান আমাদের অনুপ্রেরণা যোগায় সেই গান শোনা যাবে বিয়ন্ড বর্ডারে। পরিচালনায় রাজীব চৌধুরী।

প্রসঙ্গত, ১৯৭০ সালে আমেরিকান মিউজিশিয়ান জোয়েন কোহেল ফ্রান্সের একটি রেডিও স্টেশনে কাজ করার সময় আজকের দিনকে আন্তর্জাতিক সঙ্গীত দিবস (World Music Day) হিসেবে চিহ্নিত করার কথা ভাবেন। ১৯৮২-তে তাকে স্বীকৃতি দেয় ফ্রান্সের তথ্য-সংস্কৃতি দফতর। পরে, ফ্রান্স সহ ১২০ টি দেশে পালিত হতে থাকে গান দিবস। 


বাংলা ভাষায় বিশ্বের সকল বিনোদনের আপডেটস তথা বাংলা সিনেমার খবর, বলিউডের খবর, হলিউডের খবর, সিনেমা রিভিউস, টেলিভিশনের খবর আর গসিপ জানতে লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা ফলো করুন Twitter আর সাবস্ক্রাইব করুন YouTube
Advertisement
Advertisement