হোমটিভি

সব খেলার সেরা বাঙালির ফুটবল ওয়েবে, সিরিজে বায়োপিক কৃশাণু-র

  | August 29, 2019 12:29 IST (কলকাতা)
Football Player

কৃশাণু দে-র জীবনী নিয়ে 'কৃশাণু কৃশাণু' (সৌজন্যে: জি ৫)

কোরক মুর্মুর পরিচালনায় বায়োপিকে উঠে আসছে মোহনবাগানের জনপ্রিয় ফুটবলার খেলোয়াড় কৃশাণু দে। ২৯ অগাস্ট, অর্থাৎ জাতীয় ক্রীড়া দিবসের দিন জি ৫ ওয়েব প্ল্যাটফর্মে স্ক্রিনিং হচ্ছে 'কৃশাণু কৃশাণু'-র।

বাঙালির উন্মাদনা এবং বাংলার নিজস্ব খেলা ফুটবল নিয়ে যে আস্ত একটা ছবি বানানো যায়, দেখিয়েছিল পরিচালক  অরবিন্দ মুখোপাধ্যায়ের 'ধন্যি মেয়ে'। আজও ইস্টবেঙ্গল-মোহনবাগান মাঠে নামলে লড়াই লাগে ইলিশ আর চিংড়ির। কিন্তু বাংলার কোনও ফুটবলারের জীবনী নিয়ে আজও কোনও বায়োপিক হয়নি। সেই ব্যতিক্রমী ভাবনা এবার ওয়েব সিরিজের আকারে দেখা যাবে জি ৫। কোরক মুর্মুর পরিচালনায় বায়োপিকে (Biopic) উঠে আসছে মোহনবাগানের জনপ্রিয় ফুটবলার খেলোয়াড় কৃশাণু দে। ২৯ অগাস্ট, অর্থাৎ জাতীয় ক্রীড়া দিবসের দিন জি ৫ ওয়েব প্ল্যাটফর্মে স্ক্রিনিং হচ্ছে 'কৃশাণু কৃশাণু'-র ("Krishanu Krishanu")।

কোষ্ঠী মেনে সিধু 'সন্ন্যাসী ফেলুনাথ'! প্রেম মুখিয়ার মেয়ের সঙ্গে?

এবার প্রশ্ন উঠতেই পারে, এত খেলোয়াড় থাকতে কৃশাণু দে কেন? ফিফা স্বীকৃত শতবর্ষী ক্লাবগুলিতে ফিফা আয়োজিত একটি প্রকল্পে উঠে এসেছে কৃশাণু দে-র নাম। তাঁর ওপর একটি ডক্যু ফিচার তৈরির জন্য। এবং সেই কাজের দায়িত্ব নিয়ে সুদূর জার্মাণ থেকে কলকাতায় আসেন সাংবাদিক, ক্লারা ম্যুলার বসু। তিনি যখন ছোট ছিলেন, তখন বাবা অয়ন বসু-র মুখে শুনেছিলেন কৃশাণু দে-র কথা। প্রসঙ্গত, ক্লারার বাবাও ছিলেন কলকাতার একটি শীর্ষস্থানীয় সংবাদপত্রের প্রাক্তন সাংবাদিক। ক্লারা জনতেন, আট ও নয়ের দশকে মোহনবাগান-ইস্টবেঙ্গলের মতো কিংবদন্তি দুই দলেই সমান জনপ্রিয় ছিলেন এই খেলোয়াড়। ক্লারার এই গবেষণাই উদ্বুদ্ধ করেছে পরিচালককে, এই সিরিজ বানাতে। সিরিজে কৃশাণু-র জীবনী দেখাতে গিয়ে উঠে আসবে খেলোয়াড়ের স্ত্রী পনি, ছেলে সোহম, আরেক বিখ্যাত ফুটবলার বিকাশ পাঁজির কথা।

কোরকের কথায়, 'ফুটবল এখনও বাংলার সেরা খেলা। অনেকেই পুরনো দিনের জনপ্রিয় ফুটবল খেলোয়াড়দের জীবনী জানতে চান। কৃশাণু দে-র জীবনে অনেক শেড আছে। তাই ক্রীড়া দিবসকে স্মরণীয় করতে জি ৫-এর এই নিবেদন। আশা করি, ক্রীড়প্রেমীদের এই সিরিজ ভালো লাগবে। এবং এই প্রথম কোনও ফুটবলারের জীবনী নিয়ে বায়োপিক তৈরি হচ্ছে। তাও আবার বাংলা ওয়েব সিরিজে।'


শান্তি ফেরাতে সোমবার থেকে সবার ঘরে ‘শ্রী শ্রী আনন্দময়ী মা'

প্রসঙ্গত, ১৯৬২ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি দক্ষিণ কলকাতার একটি শরণার্থী কলোনিতে জন্মেছিলেন কৃশাণু দে। সেই সময় বাংলাদেশ থেকে কয়েক লক্ষ মানুষ শরণার্থী হিসেবে চলে এসেছিলেন এদেশে। কৃশাণু-র পরিবার তাঁদের অন্যতম। ফুটবলারের পরিবারে ছিলেন মা-বাবা, ভাই। তখনও কৃশাণুকে অ়ঞ্চলের লোক চিনতেন মণ্টু হিসেবে। শান্ত, বুদ্ধিমান ছেলেটিকে সবাই খুব পছন্দ করত। স্থানীয় ক্লাবে কালী পুজোর জন্য চাঁদা তোলা থেকে স্থানীয় ফুটবল, ক্রিকেট টুর্নামেন্টের দায়িত্বও ছিল তাঁর কাঁধে। 

সিরিজে কৃশাণু ওরফে মণ্টু ভূমিকায় অভিনয় করছেন, অনুরাগ উরহা। এছাড়াও দেখা যাবে, এলেনা ক্লাজান, বাদশা মৈত্র, দেবেশ রায় চৌধুরী, ঈশান মজুমদার, অনির্বাণ চক্রবর্তীকে। চিত্রনাট্যে শৌভিক দাশগুপ্ত, কল্লোল লাহিড়ি, অভ্র চক্রবর্তী, চন্দ্রোদয় পাল। প্রযোজনায় জ্যোতি প্রোডাকশন।


বাংলা ভাষায় বিশ্বের সকল বিনোদনের আপডেটস তথা বাংলা সিনেমার খবর, বলিউডের খবর, হলিউডের খবর, সিনেমা রিভিউস, টেলিভিশনের খবর আর গসিপ জানতে লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা ফলো করুন Twitter আর সাবস্ক্রাইব করুন YouTube
Advertisement
Advertisement