হোমবলিউড

আমির খানের ছেলে কি বলিউডে ডেবিউ করছেন?

আমির খান ও তার প্রথম স্ত্রী রিনা দত্তের বড় ছেলে জুনেইদ। তিনি ইতিমধ্যেই রাজকুমার হিরানির ‘পিকে’ সিনেমায় অ্যাসিস্ট্যান্ট ডিরেক্টর হিসেবে কাজ করে ফেলেছেন। আমির বলেন, ‘‘জুনেইদের জীবনটা একান্তই ওর। তাই সিদ্ধান্তগুলো ওর নিজেরই হওয়া উচিত। আমি এ বিষয়ে কোনও ভাবে নাক গলাবো না। পুরোটাই আমি ওর উপরে ছেড়ে রেখেছি। ও কবে ডেবিউ করবে সেটা ওরই সিদ্ধান্ত হবে।

  | March 17, 2019 18:27 IST (মুম্বই)
Aamir Khan

আমির ও কিরণের সঙ্গে জুনেইদ

Highlights

  • আমির বলেন, ওর সিনেমার থেকে থিয়েটারে বেশি আগ্রহ
  • রাজকুমার হিরানিকে পিকে সিনেমায় অ্যাসিস্ট করেছেন জুনেইদ
  • আমির বলেন, জুনেইদের সিনেমা তৈরি নিয়ে আগ্রহ রয়েছে

আমির খান সম্প্রতি জানিয়েছেন, যে তার ছেলে জুনেইদ আপাতত থিয়েটারেই বেশি মন দিয়ে কাজ করতে চায়। আর তিনি ছেলের এই সিদ্ধান্তকে সমর্থন করেন। আমির খান ও তার প্রথম স্ত্রী রিনা দত্তের বড় ছেলে জুনেইদ। তিনি ইতিমধ্যেই রাজকুমার হিরানির ‘পিকে' সিনেমায় অ্যাসিস্ট্যান্ট ডিরেক্টর হিসেবে কাজ করে ফেলেছেন। আমির বলেন, ‘‘জুনেইদের জীবনটা একান্তই ওর। তাই সিদ্ধান্তগুলো ওর নিজেরই হওয়া উচিত। আমি এ বিষয়ে কোনও ভাবে নাক গলাবো না। পুরোটাই আমি ওর উপরে ছেড়ে রেখেছি। ও কবে ডেবিউ করবে সেটা ওরই সিদ্ধান্ত হবে। তবে হ্যাঁ সৃষ্টিশীল পৃথিবী এবং সিনেমা তৈরির ব্যাপারে ওর অবশ্যই একটা আগ্রহ রয়েছে।'' আমির আরও বলেন, ‘‘জুনেইদ নিজেই নিজের রাস্তা বেছে নিয়েছে। ও থিয়েটার নিয়ে পড়াশোনা করছে। সত্যি বলতে কি ও সিনেমার থেকেও থিয়েটার নিয়ে বেশি আগ্রহী। আমিও চাই ও নিজের বেছে নেওয়া পথেই চলুক খুবই প্রতিভাবান।''

মাধুরী দীক্ষিত যেন চাঁদের ‘কলঙ্ক'

আমির খান আরও স্পষ্ট ভাবে জানিয়েছেন, ‘‘যদি জুনেইদ বলিউডে অভিনেতা হিসেবে পা রাখতে চান তা হলে তাকে একেবারে সঠিক পদ্ধতি মেনে অডিশন দিয়েই চরিত্র পেতে হবে। আমার যদি এমন কোনও চরিত্র দেখে মনে হয় যেখানে জুনেইদকে মানাবে, তা হলেই একমাত্র আমি ওকে সেই চরিত্রে নির্বাচন করব। জুনেইদকে পুরো কাস্টিং পদ্ধতির মধ্যে দিয়েই যেতে হবে। এখনও পর্যন্ত ও কোনও অডিশন দেয়নি।''

নিজের ৮ বছরের ছেলে আজাদ সম্পর্কে বলতে গিয়ে আমির খান জানান, আজকাল তিনি ছেলের সঙ্গে বেশি সময় কাটাচ্ছেন। ‘‘দুই থেকে তিন বছর আগে কিরণ আমাকে বলেছিল আমি ওদের জন্য একদমই চিন্তা করিনা। কিরণ ঠিক অভিযোগ করেনি, কিন্তু ওর কথার মধ্যে একটা গুরুত্ব ছিল যেটা আমি বুঝতে পেরেছিলাম। তারপর থেকেই আমি স্থির করি সন্ধে ছ'টার মধ্যে বাড়ি ফিরবোই। ছ'টা থেকে আটটা পর্যন্ত আমি আজাদের সঙ্গে সময় কাটাই। আটটার পরে ফের কাজে বসি। কিন্তু এই দুটো ঘন্টা আমরা শুধুমাত্র বাবা-ছেলে পরস্পরের সঙ্গে কথা বলি। ওকে নানা জিনিস পড়ে শোনাই, একে অপরের সঙ্গে সময় কাটাই।




(এনডিটিভি এই খবর সম্পাদনা করেনি, এটি সিন্ডিকেট ফিড থেকে সরাসরি প্রকাশ করা হয়েছে।)

বাংলা ভাষায় বিশ্বের সকল বিনোদনের আপডেটস তথা বাংলা সিনেমার খবর, বলিউডের খবর, হলিউডের খবর, সিনেমা রিভিউস, টেলিভিশনের খবর আর গসিপ জানতে লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা ফলো করুন Twitter আর সাবস্ক্রাইব করুন YouTube
 
Advertisement
Advertisement