হোমবলিউড

Birthday Special: মেকানিক থেকে ফিল্ম মেকার! জেনে নিন গুলজারের জীবনের জার্নি

  | August 18, 2019 13:08 IST
Birthday Special

Birthday Special: ৮৪-তে পা গুলজার সাহেবের

সম্পূর্ণ সিং কালরা। ১৯৩৪-এ পাকিস্তানে জন্ম। এই নামের মানুষকে চেনেন? খুব কম লোক এই নামে চেনেন এঁকে। বেশিরভাগই তাই ঘাড় দুনিয়ে বললেন, চিনি না! ইনিই গুলজার সাহেব। হিন্দি ছবির জনপ্রিয় পরিচালক। গীতিকার। হিন্দি-উর্দু কবি। বাংলার প্রেমে পড়ে ভাষাটি শিখেছেন বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কবিতা পড়ে। বিয়েও করেছিলেন বাঙালি নায়িকাকে। রাখী বিশ্বাস ওরফে রাখী গুলজার।

সম্পূর্ণ সিং কালরা। ১৯৩৪-এ পাকিস্তানে জন্ম। এই নামের মানুষকে চেনেন? খুব কম লোক এই নামে চেনেন এঁকে। বেশিরভাগই তাই ঘাড় দুলিয়ে বললেন, চিনি না! এই সম্পূর্ণ-ই গুলজার সাহেব (Gulzar Sahab)। হিন্দি ছবির জনপ্রিয় পরিচালক। গীতিকার। হিন্দি-উর্দু কবি। বাংলা শিখেছেন বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কবিতা পড়বেন বলে। বিয়েও করেছিলেন বাঙালি নায়িকাকে। রাখী বিশ্বাস ওরফে রাখী গুলজার। আজ তিনি পা রাখলেন ৮৪-তে (Birthday)। গুলজারেরও কিন্তু অতীত ইতিহাস আছে। তখনও তিনি সম্পূর্ণ সিং কালরা। পেটের দায়ে কাজ করতেন গ্যারাজে। মোটর মেকানিক হিসেবে। NDTV-র পাতায় আজ তাঁর সেই অজানা স্মৃতিকথা---

বিদায় মাসে কবিগুরু স্মরণে আরেক কবি: জন্মদিনে রবি কবি বন্দনায় গুলজার

সম্পূর্ণের বাবা মাখন সিং কালরার দুটি বিয়ে। দ্বিতীয় স্ত্রী সুজান কৌর-এর একমাত্র ছেলে সম্পূর্ণ। বেচারির খুব ছোট বয়সে মা চলে যান। তারপর বাবার কাছেই মানুষ। দেশভাগের পর বাবার হাত ধরে কালরা পরিবার চলে আসেন ভারতে। পাঞ্জাবের অমৃতসরে পাকাপোক্ত বসতি বানান তাঁরা। এখানেই পড়াশোনা শেখার পর সম্পূর্ণ চলে আসেন মুম্বইয়ে। রুজিরুটির ধান্দায়। অনেক কাজ খোঁজার পর তিনি একটি গ্যারাজে শুরু করেন মোটর মেকানিকের কাজ। কিন্তু ছোট থেকেই কবিতা লেখার প্রচণ্ড শখ সম্পূর্ণের।  সারাদিন হাড়ভাঙা খাটুনির পরেও রাত জেগে কবিতা লিখতেন তিনি। শেষে একসময় দেখলেন, মেকানিকের কাজ করতে গিয়ে মরে যাচ্ছে কবি মন। সঙ্গে সঙ্গে রোজগারের চিন্তা ভুলে সম্পূর্ণ ছেড়ে দিলেন সেই কাজ। যোগ দিলেন মুম্বইয়ের সেই সময়ের জনপ্রিয় পরিচালক হৃষিকেশ মুখোপাধ্যায়ের সঙ্গে। পা রাখলেন রুপোলি দুনিয়ায়।

হৃষিকেশ মুখোপাধ্যায়ের পাশাপাশি সহকারি হিসেবে কাজ করতে থাকেন পরিচালক বিমল রায়, সুরকার হেমন্ত মুখোপাধ্যায়ের সঙ্গে। বলিউডে পা রেখে সম্পূর্ণ রূপান্তরিত হলেন গুলজার-এ। তাঁর প্রথম কাজ 'বন্দিনী' ছবিতে শচীন দেব বর্মনের সুরে লেখা গান। আস্তে আস্তে গানের পাশাপাশি ছবি পরিচালনাও করতে থাকেন তিনি। গুলজারের বিখ্যাত গানগুলির মধ্যে অন্যতম, 'মেরে তেরে লিয়ে হি সাত রঙ্গ কে স্বপ্নে চুনে', 'জিন্দেগি, ক্যায়সি হ্যায় পহেলি', 'কহি দূর যব দিন ঢল যায়ে', 'না জিয়া লাগে না', 'সজন আয়ো রে', 'অ্যায় বতন', 'চপ্পা চপ্পা চরখা চলে' ইত্যাদি। প্রথম ছবি তপন সিংহের বাংলা ছবি 'আপন জন'-এর রিমেক 'মেরে আপনে'। এরপর একের পর এক তিনি তৈরি করেন, 'আঁধি', 'মৌসম', 'ইজাজত', 'পরিচয়', 'কোশিশ', 'মাচিস', 'হু তু তু' ইত্যাদি।

4no6mmbo


বড়পর্দার পাশাপাশি ছোটপর্দাতেও স্বকীয়তার ছাপ রেখেছেন গুলজার 'জঙ্গল বুক', 'এলিস ইন ওয়ান্ডারল্যান্ড', 'পটলি বাবা কি', 'হ্যালো জিন্দেগি' ধারাবাহিকের মাধ্যমে। জঙ্গল বুকের টাইটেল সং 'জঙ্গল জঙ্গল বাত চলি হ্যায়' আজও লোকের মুখে মুখে ফেরে। 

কেরিয়ারে যতটা সফল ততটাই ব্যক্তিজীবনে অসফল এই কবি। বাংলার প্রেমে পড়ে তিনি বিয়ে করেছিলেন ডিভোর্সি নায়িকা রাখীকে। যদিও এই বিয়ে বেশিদিনের নয়। মেয়ে মেঘনা জন্মানোর আগেই বিচ্ছেদ হয়ে যায় তাঁদের। দু-জনের কাছেই সমান ভাবে থেকে বড় হয়েছেন মেঘনা। এখন তিনিও বাবার মতোই নামি পরিচালক।

কিশোর কুমার জনপ্রিয় হতেই দুর্ব্যবহারের শিকার হয়েছিলেন মহম্মদ রফি?

২০০৪-এ গুলজার ভারতের সর্বোচ্চ সম্মান পদ্মভূষণ পেয়েছিলেন। ২০০৯-এ 'স্ল্যাম ডগ মিলেনিয়ার'-এ 'জয় হো' গানের জন্য অস্কার পুরস্কার পান। NDTV দেশের গর্ব এই পরিচালক-কবি-গীতিকারকে জন্মদিনে জানাচ্ছে অনেক শুভেচ্ছা।


বাংলা ভাষায় বিশ্বের সকল বিনোদনের আপডেটস তথা বাংলা সিনেমার খবর, বলিউডের খবর, হলিউডের খবর, সিনেমা রিভিউস, টেলিভিশনের খবর আর গসিপ জানতে লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা ফলো করুন Twitter আর সাবস্ক্রাইব করুন YouTube
Advertisement
Advertisement