হোম

রুপোলি দুনিয়ায় রূপকথার বসতি, ছোটদের জন্য বড় পর্দায় ‘বুদ্ধু ভুতুম’

  | September 09, 2019 19:03 IST (কলকাতা)
Buddhu Bhutum

আসছে বুদ্ধু ভূতুম

সে একটা সময় ছিল। ভরদুপুরে চুরি করা আচার মাখা হাত ঝড়ের বেগে হাটকাতো রূপকথার বই। কিংবা শীতের মিঠেকড়া রোদ মেখে ঠাম্মি-দিদুনের গা ঘেঁষে চুপ করে বসে গোগ্রাসে গিলত  কলাবতী রাজকন্যে, বুদ্ধু ভুতুম, ঠাকুমার ঝুলি।

সে একটা সময় ছিল। ভরদুপুরে আচার মাখা কচি হাত ঝড়ের বেগে হাটকাত রূপকথার বই। কিংবা শীতের মিঠেকড়া রোদ মেখে ঠাম্মি-দিদুনের গা ঘেঁষে চুপ করে বসে একদল কচিকাঁচা কান দিয়ে গোগ্রাসে গিলত কলাবতী রাজকন্যে, বুদ্ধু ভুতুম (Buddhu Bhutum), ঠাকুমার ঝুলি (Thakumar Jhuli)। তখনকার বাচ্চারা ফ্যানটম জানত না। হ্যারি পটার জন্মায়নি তখনও। তখন ছোটদের দু'চোখ মোবাইলে আটকে থাকত না। বরং স্বপ্ন দেখত, ব্যঙ্গমা-ব্যঙ্গমীর। রাতে যখন চোখের পাতায় ঘুম নামত, স্বপ্ন নামত সঙ্গী হয়ে। শ্রোতা সেই স্বপ্ন-পক্ষীরাজের পিঠে সওয়ার হয়ে পৌঁছে যেত কল্পনার রাজ্যে। ঘুমের মধ্যেও তাই খুদের পাতলা ঠোঁটের কোণে আলতো করে ছুঁয়ে থাকত স্বপ্ন দেখার তৃপ্তি মাখা হাসি।

‘Gumnami': ‘কেন বন্ধ হয়েছিল মুখার্জি কমিশন?' ফরওয়ার্ড ব্লক মঞ্চ থেকে প্রশ্ন তুললেন সৃজিত

সেই সময়ও নেই। দক্ষিণরঞ্জন মিত্র মজুমদারের কালজয়ী সৃষ্টি ঠাকুমার ঝুলিও কালের ধুলোয় মলিন। কিন্তু আরেকবার যদি শোনানো যায় আজকের বাচ্চাদের সেই সময়ের রূপকথা! ওরা শুনবে না? এই তাগিদ থেকেই নীতিশ রায় খুদেদের হাতে পুজো উপহার তুলে দিচ্ছেন 'বুদ্ধু ভূতুম' ছবি। সত্যি, তখনকার দিনে কিন্তু পুজোয় বাংলা বই উপহার দেওয়ার চল ছিল।

9bgnu32o


কেমন সেই উপহার? তারই এক ঝলক দেখা মিলল সোমবার। ঝকঝকে ট্রেলার-পোস্টারে। যেখানে অ্যানিমেশনে নড়েচড়ে বেড়াতে দেখা গেল কলাবতী রাজকন্যে, বানর রাজপুত্র বুদ্ধু আর প্যাঁচা রাজকন্যে ভুতুমকে। তাদের সবাইকে সবার সামনে হাজির করতে উপস্থিত ছিলেন স্বয়ং পরিচালক নীতিশ রায়, গৌতম হালদার, মানালি দে, কনীনিকা বন্দ্যোপাধ্যায়, কৌশিক চক্রবর্তী, দেবলীনা কুমার, সঙ্গীতশিল্পী সুরজিৎ চট্টোপাধ্যায়, অন্তরা চৌধুরী। 


পুজোর আগেই ‘আড্ডা'য় মাতছেন বং তারকারা, সৌজন্যে দেবায়ুশ

এর আগে নীতিশ রায় বাচ্চাদের উপহার দিয়েছিলেন 'গোঁসাই বাগানের ভূত'। কথায় কথায় নীতিশ জানালেন, বুদ্ধু ভুতুম তাঁর ড্রিম প্রোজেক্ট। ১৯৭২ সাল থেকে এই ছবি তৈরির স্বপ্ন তিনি দেখে আসছেন। কিন্তু তখনও টেকনোলজি এত উন্নত হয়নি। তাই ইচ্ছে থাকলেও ছবি করা যায়নি। এখন সেই সুযোগ রয়েছে। তাই একুশ শতকের মতো করে ছবি তৈরি করলেন অবশেষে। যাতে জিম কার্টারের সঙ্গে পাল্লা দিতে পারে এই ছবি। ছবির প্রথম অফিসিয়াল প্রোমো বেরিয়েছিল ২০১৭-য়। নানা কারণে পিছিয়ে যেতে যেতে অবশেষে দুর্গাপুজোর আগে মুক্তি পাচ্ছে ছবি। এখানে কনীনিকা বন্দ্যোপাধ্যায়, দেবলীনা কুমারের সঙ্গে অভিনয় করতে দেখা যাবে লকেট চট্টোপাধ্যায়কে। গান হেঁশেলের তদারকিতে সুরজিৎ চট্টোপাধ্যায়। গান গেয়েছেন অন্তরা চৌধুরী, সায়নী পালিত।ব্যাকগ্রাউন্ড স্কোরে সঞ্জয়-রাজি আর অনির্বাণ সেনগুপ্ত।

j9lbckog


ছবির চিত্রনাট্য আর সংলাপ লিখেছেন কৌশিক বন্দ্যোপাধ্যায়। ক্যামেরা সামলেছেন মৃন্ময় মণ্ডল। পরিচালনা ছাড়াও প্রোডাকশন ডিজাইন, অ্যানিমেশন আর ছবিতে ভিএফএক্স-এর দায়িত্বও সামলেছেন নীতিশ নিজের হাতে। ছবিতে বুদ্ধুর চরিত্রে দেখা যাবে সুজয় সাহাকে। মানালি হয়েছেন ভুতুম। স্পেশ্যাল এফেক্টের জাদুকাঠিতে ছবির মধ্যেই চলবেফিরবে ড্রাগন। থাকবে নানা অলৌকিক দৃশ্য। তোমরা এবং আপনারা, এখনও যাঁরা বইপোকা, যাঁরা পড়েছেন কিংবা যারা জান না ঠাকুমার ঝুলির গল্প, তাদের সবার জন্য আরও একবার রূপকথার রাজ্যে হারিয়ে যাওয়ার সুযোগ করে দিচ্ছেন নীতিশ রায়। আগামী ২০ সেপ্টেম্বর।  


বাংলা ভাষায় বিশ্বের সকল বিনোদনের আপডেটস তথা বাংলা সিনেমার খবর, বলিউডের খবর, হলিউডের খবর, সিনেমা রিভিউস, টেলিভিশনের খবর আর গসিপ জানতে লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা ফলো করুন Twitter আর সাবস্ক্রাইব করুন YouTube
Advertisement
Advertisement