হোম

Independence Day 2019:  ৭৩ তম স্বাধীনতা দিবসে সামনে আসছেন ‘নেতাজি’?

  | August 15, 2019 14:53 IST (কলকাতা)
Independence Day 2019

নেতাজি আর গুমনামি বাবা এক!

দুর্ঘটনার পরের খবর, নেতাজিকে নাকি রাশিয়ায় নিয়ে গিয়ে অত্যাচার করে মেরে ফেলা হয়েছিল। সমস্ত খবর বসু পরিবারে পৌঁছেতেই যখন নেতাজির  শ্রাদ্ধের আয়োজনে সবাই ব্যস্ত, তখনই সেই অনুষ্ঠান পালনে নাকি বাধা দিয়েছিলেন স্বয়ং গান্ধিজি। তাঁর চিঠিতে পরিবারের উদ্দেশ্যে লেখা, নেতাজি বেঁচে রয়েছেন!

৭৩ বছর হল স্বাধীন (Independence Day 2019) হয়েছে দেশ। আর ৭৩ বছর ধরে বাঙালি একটাই আপশোস পুষে রেখেছে চেতনে-অবচেতনে, ইসস! আজ যদি নেতাজি থাকতেন (Netaji Subhash Chandra Bose)! এই আপশোস আজকের দিনে আরও বেশি করে তোলপাড় করে কেন?

ঘটনা ১: ইতিহাস বলছে, ১৯৪৫-এ ১৮ অগাস্ট নাকি তাইওয়ানের কাছে বিমান দুর্ঘনায় মারা যান সুভাষ চন্দ্র বসুর মতো জননেতা। যিনি, বাঙালির বুকের খুব কাছের। যদিও এই দুর্ঘটনার পরের খবর, নেতাজিকে নাকি রাশিয়ায় নিয়ে গিয়ে অত্যাচার করে মেরে ফেলা হয়েছিল। সমস্ত খবর বসু পরিবারে পৌঁছেতেই যখন নেতাজির  শ্রাদ্ধের আয়োজনে সবাই ব্যস্ত, তখনই সেই অনুষ্ঠান পালনে নাকি বাধা দিয়েছিলেন স্বয়ং গান্ধিজি। তাঁর চিঠিতে পরিবারের উদ্দেশ্যে লেখা, নেতাজি বেঁচে রয়েছেন!

ঘটনা ২: নেতাজির মৃত্যু রহস্য নিয়ে ধোঁয়াশা থাকতে থাকতেই ১৯৮৩-তে খোঁজ মেলে গুমনামি বাবার (Gumnami Baba)। উত্তরপ্রদেশের ফৈজাবাদের এক সন্ন্যাসীর সঙ্গে নাকি অনেক মিল ছিল নেতাজির। স্থায়ীয় মানুষেরা তাঁকে ভগবানজি বলে ডাকতেন। এই সন্ন্যাসী থাকতেন রামভবনে। এই ভগবানজি ওরফে গুমনামি বাবার মৃত্যু হয় ১৯৮৫ সালে। তারপরে তাঁর বাড়ি থেকে নাকি উদ্ধার হয় এমন কিছু জিনিস যাতে স্বাক্ষর ছিল নেতাজির। সেখানে ছবিও ছিল নেতাজির। যা নাকি নেতাজির মৃত্যুর পরবর্তী সময়ের। ধোঁয়াশা আরও ঘন হয় এরপর থেকেই। আরও শোনা গেছে, নেতাজির ১০২ বছরের ড্রাইভার দাবি করেছিলেন, বিমান দুর্ঘটনায় মারা যাননি নেতাজি! তাহলে কি গুমনামি বাবা-র ছদ্মবেশেই ছিলেন নেতাজি আমাদের মধ্যে? ১৯৮৫ সাল পর্যন্ত? আমরা দেখেও বুঝতে পারিনি! যদিও এই ঘটনাকে অনেকেই গাঁজাখুরি বলে উড়িয়ে দেন।

ডাবিং শেষ ‘গুমনামি বাবা'-র: খুশির মেজাজে পরিচালক সৃজিত


এই দুই ঘটনার যোগফল এবং ৭৪ বছর ধরে সুভাষ চন্দ্র বসুর থাকা না থাকার দোলাচল আজও বাঙালিকে ভাবতে বাধ্য করে নেতাজি নিয়ে। সেই চিন্তা এবার সরাসরি বড়পর্দায় ছড়িয়ে দিতে চলেছেন পরিচালক সৃজিত মুখোপাধ্যায় (Srijit Mukherjee)। এসভিএফ-এর প্রযোজনায় (SVF) তাঁর আগামী ছবি গুমনামি-র (Gumnami) মাধ্যমে। আর আজ, উপযুক্ত দিনে হিন্দি-বাংলা দুটি ভাষায় প্রকাশ্যে এল সেই ছবির অফিসিয়াল টিজার (Official Teaser)। প্রযোজনা সংস্থা অবশ্য যথারীতি গতকালই টিজার মুক্তির আভাষ দিয়েছিল টুইটারে। সেই টুইট রিটুইট করেন ছবির মুখ্য চরিত্র প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায় এবং সৃজিত মুখোপাধ্যায়। দেখুন সেই টুইট:



ছবির টিজার বলছে, প্রত্যেকবারের মতোই নিজেকে ২০০ শতাংশ উজাড় করে দিয়েছেন প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায় (Prosenjit Chatterjee)। তাঁর চলন-বলন-তাকানো-হাঁটাচলায়-প্রস্থেটিক মেকআপে নেতাজির ছায়া হুবহু। মেকআপ করিয়েছেন সোমনাথ কুণ্ডু। ছবিতে বুম্বাদা ছাড়াও রয়েছেন তনুশ্রী চক্রবর্তী, অনির্বাণ ভট্টাচার্য।

দেখুন টিজার:



গুমনামি বাবাকে নেতাজি প্রমাণ করার অশুভ প্রচার চলছে: নেতাজির পরিবার

ছবি তৈরির কথা প্রকাশ্যে আসতেই প্রতিবাদে মুখর হয়েছেন বসু পরিবারের সদস্য এবং বিজেপি সাংসদ চন্দ্র কুমার বসু। যদিও সৃজিত জানিয়েছেন, তিনি কোথাও সত্যের অপলাপ ঘটাননি। আর বাঙালির অনন্ত খোঁজ, অশান্ত জিজ্ঞাসাকে সামনে এনেছেন মাত্র। ছবি ঘিরে তাই নেতাজিকে নিয়ে যতই দ্বন্দ্ব-বিতর্ক তৈরি হোক, বাঙালি দর্শক কিন্তু মুখিয়ে গুমনামি-কে দেখতে, জানতে। প্রযোজনা সংস্থার পক্ষ থেকে তাই মহেন্দ্র সোনির বার্তা, আজ ঝলক দেখুন। দুর্গাপুজোয় দেখতে পারবেন সম্পূর্ণ নেতাজিকে। এই পুজো ঘিরেও নেতাজির অবদান কিন্তু কম নয়!


বাংলা ভাষায় বিশ্বের সকল বিনোদনের আপডেটস তথা বাংলা সিনেমার খবর, বলিউডের খবর, হলিউডের খবর, সিনেমা রিভিউস, টেলিভিশনের খবর আর গসিপ জানতে লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা ফলো করুন Twitter আর সাবস্ক্রাইব করুন YouTube
Advertisement
Advertisement