হোমমিউজিক

৬০ বছর পরেও ধুতি-শার্ট পরা হেমন্ত-এর গলা দিয়েই ঝরে বসন্ত

  | July 18, 2019 20:01 IST (কলকাতা)
100th Birth Anniversary

এখনও হেমন্ত নাম, তাঁর গান ভেসে এলেই মনে হয়, পৃথিবীর যত প্রেম যেন জমা হয়েছে তাঁর গলাতেই। ঋতুরাজের স্থায়ী সাকিন শিল্পীর কণ্ঠে। যে কণ্ঠে প্রেম আর বিরহের স্বচ্ছন্দ সহবাস।

একবার প্রখ্যাত সুরকার সলিল চৌধুরী বলেছিলেন, হেমন্তের চেহারা দেবদূতের মতো। গলা ঈশ্বরপ্রদত্ত। ঈশ্বর যদি কোনোদিন প্রেমের গান করেন তাহলে সেই গান হবে হেমন্ত মুখোপাধ্যায়ের (Hemanta Mukherjee) মতোই। ঈশ্বরের বিনাশ নেই। তাই বিনাশ নেই হেমন্ত মুখোপাধ্যায়েরও। আজ তাঁর ১০০ তম জন্মবার্ষিকী (100th Birth Anniversary)। এখনও হেমন্ত নাম, তাঁর গান ভেসে এলেই মনে হয়, পৃথিবীর যত প্রেম যেন জমা হয়েছে তাঁর গলাতেই। ঋতুরাজের স্থায়ী সাকিন শিল্পীর কণ্ঠে। যে কণ্ঠে প্রেম আর বিরহের স্বচ্ছন্দ সহবাস। সেই শিল্পীর আজ না জানা কথা (Memorable Incidents) এনডিটিভি-র পাতায়----

গান ভালোবাসে গাইতে এই প্রথম একজোট এই প্রজন্মের শিল্পীরা

ব্যক্তিজীবনে ভীষণ কম কথার মানুষ ছিলেন হেমন্ত মুখোপাধ্যায়। প্রখর ব্যক্তিত্বের  এই মানুষটিই প্রচণ্ড রেগে যেতেন কেউ সময় ধরে না চললেন। পাঁচের দশকে যখন তিনি নিয়মিত মুম্বই-কলকাতা করতেন তখনও তিনি ঘড়ি ধরে চলতেন। শোনা কথা, একবার এক সাংবাদিক নাকি নির্দিষ্ট টাইমের দেরিতে ঢুকে প্রচণ্ড বকুনি খেয়েছিলেন। শিল্পীর বাড়িতে পা রাখা মাত্রই নাকি ঘড়ি দেখিয়ে তাঁকে প্রশ্ন করেন হেমন্ত, কখন আসার কথা ছিল? ওই সাংবাদিক খুবই কুণ্ঠার সঙ্গে জানান, পাঁচ মিনিট লেট হয়েছে দাদা। শীতের সকাল। উত্তর থেকে দক্ষিণে আসতে....। মুখের কথা কেড়ে নিয়ে সেদিন নাকি ধমক দিয়েছিলেন তাঁকে হেমন্ত, কলকাতার উত্তর-দক্ষিণ করতেই তোমার লেট হচ্ছে! আমি তো তোমার জন্য বম্বে থেকে প্লেন ধরে সময় মতো এসে বসে রয়েছি! তার বেলা? সেদিন থেকে সাংবাদিক আর কোনোদিন লেট হননি।

2vpkkfd8

ছয়-সাতের দশক বা তারও আগে হেমন্ত মুখোপাধ্যায় মানেই উত্তমকুমার। আর উত্তমকুমার মানেই হেমন্ত। পর্দায় মহানায়ক মানেই তাঁর লিপে হেমন্তের গান অবধারিত। সেই উত্তমকুমারের সঙ্গে নাকি একাধিক বার বিরোধ বেঁধেছিল হেমন্তের। প্রথম বিরোধ নাকি মহানায়কের বিবাহবার্ষিকীর এক ঘটনা নিয়ে। ঘটনা কতটা সত্যি জানা নেই, তবে বছরকার ওই দিনেই নাকি উত্তমকুমারের স্ত্রী গৌরী দেবীকে মজা করে কিছু বলেছিলেন। জিনিসটা খুব ভালো চোখে দেখেননি উত্তমকুমার। তারপর থেকেই নাকি হেমন্তের সঙ্গে কথা বলা বন্ধ করে দেন। সেই সময় উত্তমকুমারের লিপে কণ্ঠ দেন শ্যামল মিত্র, মান্না দে-র মতো শিল্পীরা।


শুরু হচ্ছে ষষ্ঠ হায়দ্রাবাদ চলচ্চিত্র উৎসব, থাকবেন স্বস্তিকা-ঋতুপর্ণা

পরে সেই সম্পর্ক আবার জোড়া লাগে। কিছুদিন পরে আবার দ্বন্দ্ব বাঁধে অভিনেত্রী মৌসুমী চট্টোপাধ্যায়কে কেন্দ্র করে। মিষ্টি মৌসুমীকে নাকি নিজের ছেলের সঙ্গে বিয়ে দিতে চেয়েছিলেন উত্তম-হেমন্ত দু-জনেই। বাজিজেতেন হেমন্ত মুখোপাধ্যায়। মৌসুমীর সঙ্গে তাঁর ছেলে জয়ন্তর বিয়ে হয়। দুই বন্ধুর সেই দ্বন্দ্ব মাটির পৃথিবীতে আর মেটেনি। 





বাংলা ভাষায় বিশ্বের সকল বিনোদনের আপডেটস তথা বাংলা সিনেমার খবর, বলিউডের খবর, হলিউডের খবর, সিনেমা রিভিউস, টেলিভিশনের খবর আর গসিপ জানতে লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা ফলো করুন Twitter আর সাবস্ক্রাইব করুন YouTube
Advertisement
Advertisement