হোমআঞ্চলিক

মৃণাল সেন (১৯২৩-২০১৮)

  | December 30, 2018 16:05 IST (কলকাতা)
Mrinal Sen

মৃণাল সেন।

চলে গেলেন মৃণাল সেন।

একে একে নিভিছে দেউটি৷ আর মাত্র একটা দিন বাকি। তারপরেই শেষ হয়ে যাবে এই বছর৷ বছরের শেষ সপ্তাহটা বাঙালি মনে রাখবে বহুদিন। আজ সকালে চলে গেলেন বাংলা সংস্কৃতির আরও একজন নক্ষত্র৷ জন্ম ১৯২৩ সালের ১৪ মে। অবিভক্ত বাংলার ফরিদপুরে। কলেজে পড়ার জন্য প্রথম তিনি কলকাতায় আসেন। ভর্তি হন স্কটিশ চার্চ কলেজে। তারও প্রায় বছর পনেরো বাদে পরিচালনা করেন নিজের প্রথম ছবি- 'রাতভোর'। সেই ছবিতে অভিনয় করেছিলেন তখনও 'তারকা' না হয়ে ওঠা উত্তমকুমার। সেই ছবিটি দর্শক বা সমালোচক কারও আনুকূল্যই পায়নি তেমনভাবে। বলা যায়,  দ্বিতীয় ছবি 'নীল আকাশের নিচে' থেকেই শুরু হয় বাংলা তথা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্রে তাঁর যাত্রা। তৈরি হয় এক নতুন অধ্যায়। বাংলার সংস্কৃতির শরীরে লাগে এক দূষণমুক্ত নিখুঁত তাজা ঢেউ। যে ঢেউয়ের নাম- মৃণাল সেন। 

491air4

মৃণাল সেন।

তথ্য জানায়, তিনি তাঁর ছবির জন্য বহু জাতীয় পুরস্কার পেয়েছেন। গ্রহণ করেছেন অজস্র আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি। যা জানায় না, অথবা জানাবে না কখনওই যে, ঠিক কীভাবে  বাংলা ছবির দর্শকের আটপৌরে, নিঃস্পন্দ, বাতাস নিঃশেষিত, ক্লীণ্ণ ও জটিল জীবনের ভাঁজে কোন এক অমোঘ ঘুলঘুলির চোরাপথ দিয়ে চলে আসা রশ্মিরেখার মতো করে  থাবা বসিয়েছিলেন মৃণাল সেন ও তাঁর ছবি। কোনওদিনই সক্রিয় রাজনীতি করেননি। তবে, বামপন্থা ছিল তাঁর মননে। সলিল চৌধুরী, ঋত্বিক ঘটক, উৎপল দত্তদের সঙ্গে তিনিও ছিলেন আইপিটিএ'র এক অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ সদস্য। আজীবন মনে করে এসেছেন শেষতম ছবিই সবচেয়ে ভালো ছবি। অন্তত যতক্ষণ না পরের ছবির কাজ শুরু হচ্ছে। মনে করতেন, এ যেন পাহাড় ডিঙিয়ে যাওয়া..সিনেমা যে শুধুমাত্র পরিচালকের কাজ, প্রবলভাবে বিশ্বাস করতেন সেই কথাটিও।

একদিন প্রতিদিন'-এর জীবন ছেড়ে নীল আকাশের দেশে পাড়ি দিলেন মৃণাল সেন


'ইন্টারভিউ' ছবিটা মুক্তি পাওয়ার পর ১৯৭২ সালে তাঁর একটি সাক্ষাৎকার নিয়েছিলেন লেখক সন্দীপন চট্টোপাধ্যায়। সেই সাক্ষাৎকারটিতে চলচ্চিত্র শিল্প সম্বন্ধে নিজের মতামত দিতে গিয়ে তিনি এক জায়গায় বলেছিলেন, "ফিল্ম একটা লোকের কাজ৷ ডিরেকটরের। টেকনিশিয়ান ও অভিনেতা-অভিনেত্রীর বুদ্ধি, দক্ষতা ও সহমর্মিতার ওপর নির্ভর করতে হয় ঠিকই- রঙ ও শব্দের চেয়ে এর জটিলতা হয়তো বেশিই- কেননা, যদিও রং বা শব্দও কম বেগ দেয় না জানি- তবুও, এক-একটা জ্যান্ত মানুষ, সে বড় গোলমেলে ব্যাপার মশায়। তবু ঠিক পেন্টার, কবি বা ঔপন্যাসিকের মতোই ফিল্ম হচ্ছে শেষ পর্যন্ত একজন লোকেরই এক্সপ্রেশন। আমি শুধু এটুকু বলতে পারি যে, নিজেকে আরও বিশদভাবে প্রকাশ করতে গিয়ে আমি ক্রমশই টেকনিশিয়ান বা অভিনেতাদের ওপর কম নির্ভরশীল হচ্ছি... সকলের শিল্পবোধ, বুদ্ধিবিবেচনা বা কর্মদক্ষতা, এককথায় কন্ট্রিবিউশন, এ তো নিজ নিজ স্তরে থাকেই, যা নইলে ছবি হয় না এবং তাকে যথার্থ সম্মান করেই আমি এটা বলছি। আমি...আমি ক্রমেই তাঁদের ওপর কম নির্ভরশীল হচ্ছি"।

q1074gb

মৃণাল সেন।

তাঁর ছবির যে নিজস্ব ভাষা, তার দিকে স্থির চোখে তাকালে বোঝা যায়, তা কী গভীরভাবে হতে চায় সৎ। সীমাহীন ভ্রান্তিবিলাসের মধ্যে থেকেই কী অমোঘভাবে তুলে ধরে সাগরের নীল মরুভূমি। সময়ের নির্মম এবং ঝনঝন আঘাতকে অস্বীকার করে কোনওদিনই ছবি বানাতে চাননি মৃণাল৷ তার বদলে মানুষের অতি পরিচিত হেরে যাওয়ার স্যাঁতস্যাঁতে মুহূর্তগুলোর পাশে জ্বলন্ত সিগারেট নিয়ে বসে কী যত্নে কী অমোঘভাবেই না নির্মাণ করেছেন কঠিন ক্ল্যাসিক গ্রিক ভাস্কর্যকে! তার সাক্ষী কোরাস, ভুবন সোম, কলকাতা ৭১, ওকা উরি কথা, খন্ডহর, খারিজ বা অন্তরীণের মতো ছবি। এই নির্মাণের মাধ্যমেই মানুষের এই ভয়াবহ লৌকিক পৃথিবীতে দাঁড়িয়ে আদিমতম উষাপুরুষের উদ্দেশে নিবেদন করেছেন এক মধ্যবিত্ত পাড়ার  কোনও শান্ত পুকুরের জল। 

মৃণাল সেনের জীবনাবসান, শোক জ্ঞাপন করে টুইট মুখ্যমন্ত্রী, রাষ্ট্রপতির

বাঙালির জীবনের অনেক ল্যান্ডমার্কই এখন অস্তগামী। তবু মনে হয়, চশমা পরা কঠিন মুখ এবং সাদা পাজামা ও পাঞ্জাবী পরা অবস্থায় ফাঁকা রাস্তায় এলিয়ে থাকা দেহটি নিয়ে বাঙালির প্রতিটি রক্তক্ষরণের দিকে, প্রতিটি পুঁজের দিকে, প্রতিটি কুযুক্তির দিকে, প্রতিটি পূতিগন্ধময় অনুভূতির দিকে একদৃষ্টে চেয়ে থাকবেন মৃণাল সেন৷ 

তার কারণ, একটি অদৃষ্টপূর্ব ভুঁইফোড় সময়ে ছবির চিরন্তন সংলাপগুলো রেখেই মৃত্যু পরবর্তী অনিমেষ আলোর বলয়ে মিশে গেলেও এ কথা কে না জানে, অনেক 'নেই'-এর মাঝখানে প্রতিটি বাঙালির আত্মায় একটি তর্জনী উঁচিয়ে রয়ে গিয়েছেন একজন মৃণাল সেন। প্রতিটি নাগরিক উচ্চারণের স্নায়ুতে রয়ে গিয়েছে পঞ্চাশ বছর আগের স্বপ্নেঠাসা একজন রোমাঞ্চকর ভুবন সোম।


বাংলা ভাষায় বিশ্বের সকল বিনোদনের আপডেটস তথা বাংলা সিনেমার খবর, বলিউডের খবর, হলিউডের খবর, সিনেমা রিভিউস, টেলিভিশনের খবর আর গসিপ জানতে লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা ফলো করুন Twitter আর সাবস্ক্রাইব করুন YouTube
Advertisement
Advertisement
Listen to the latest songs, only on JioSaavn.com