হোমবলিউড

RAW Review: মুক্তিযুদ্ধ, গুপ্তচরবৃত্তি, দেশপ্রেমসবই ঘেঁটে গিয়ে নড়বড়ে রোমিও আকবর ওয়াল্টার

  | April 05, 2019 15:42 IST
Romeo Akbar Walter Movie Review

Romeo Akbar Walter Movie Review: সিনেমার পোস্টারে জন আব্রাহাম (John Abraham)

Romeo Akbar Walter Movie Review: বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ এবং তাতে ভারতের নির্বাহী ভূমিকার প্রেক্ষাপটে রোমিও আকবর ওয়াল্টারকে আবিষ্কার করে দর্শক।

অভিনয়েঃ জন আব্রাহাম, মৌনী রায়, সিকান্দর খের, জ্যাকি শ্রফ

পরিচালকঃ রবি গ্রেওয়াল

রেটিং: ২ টি স্টার (৫ টির মধ্যে)


রোমিও আকবর ওয়াল্টারের প্রথম দৃশ্যই শুরু হয় জন আব্রাহামের রক্তাক্ত দেহ দিয়ে। ঠান্ডা কংক্রিটের মেঝেতে পড়ে আছে রোমিওর দেহ। তাঁকে করাচির ইন্টার-সার্ভিসেস ইন্টেলিজেন্স (আইএসআই) আটক সেলে থার্ড ডিগ্রি দেয়া হয়েছে। একজন পাকিস্তানি কর্নেল, জনের নখ উপড়ে নেয়। তীব্র এক ভয় পাওয়ানো দৃশ্য দিয়েই গুপ্তচরের গল্প শোনাতে বসেছিলেন পরিচালক। এক লহমায় আমাদের নিয়ে গেলেন ১৯৭১ সালে, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ এবং তাতে ভারতের নির্বাহী ভূমিকার প্রেক্ষাপটে রোমিও আকবর ওয়াল্টারকে আবিষ্কার করে দর্শক। এখান থেকেই সিনেমাটা ঘুরে দাঁড়াতে পারত, কিন্তু না! পরিবর্তে দর্শক যা পেল তা হল বিস্তৃত এবং বিরাট একটি চলচ্চিত্র যা কেবলই শত্রুজাতির যুদ্ধ পরিকল্পনা সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহের জন্য করাচিতে গুপ্তচর-নায়ক পাঠানো ছাড়া আর কিছুই হয়ে উঠল না।

 ‘দেশপ্রেম বেচব বলে বর্ডার সিনেমা করিনি, কিন্তু এখন সবই..' কী বলছেন সানি দেওল

sifuofn8

ভারতীয় গোয়েন্দা প্রধান শ্রীকান্ত রায় (জ্যাকি শ্রফ) রেহমাতুল্লাহর ‘রোমিও' আলি (আব্রাহাম)কে বলেন, "আপনার মনেই প্রতিটি তালার চাবি রয়েছে"। রোমিও একজন ব্যাঙ্ক কর্মচারি, যাকে  গোপন অপারেশনের পাঠাতে চায় পাকিস্তানে। দুর্ভাগ্যবশত, পরিচালক রবির সহ-লিখিত সিনেমাটিতেও অনেকগুলি তালা ছিল বটে কিন্তু কোনওটারই চাবি খুঁজে পাওয়া যায়নি। সিনেমায় তিনজন অভিজ্ঞ অভিনেতা- অলকা আমিন, রঘুভীর যাদব এবং অনিল জর্জ ছিলেন, কিন্তু তাঁদের ক্ষমতাকে কাজেই লাগানো হয়নি সেভাবে। দেশের এই মুহূর্তের আবেগকে কাজে লাগিয়ে, পরিচালক শহিদ পরিবারের ব্যাঙ্ককর্মী সন্তানকে দেশের সেবায় জোর করে নিয়োজিত করতে পেরেছেন বটে কিন্তু রোমিও আকবর ওয়াল্টার না তো পর্দায়, না তো মননে তেমন ছাপ রাখতে পেরেছে।

80kh77e8

পাকিস্তানের অলিতে গলিতে তিনজন আইএসআই কর্মীর ধাওা করার দৃশ্যই হোক বা পাকিস্তানের অস্ত্রচুক্তির দুর্নীতি কোথাওও চিত্রনাট্য তেমন বিশ্বাসযোগ্য হয়ে ওঠেনি। রোমিও আলি থেকে করাচির লিয়াকতবাদের আকবর মালিক হয়ে ওঠা জনও অভিনয়ে কোথাও ততটা জোরালো করে তুলতে পারেননি তাঁর চরিত্রকে। রোমিও আকবর ওয়াল্টার সত্যিকারই কি গুপ্তচর বিষয়ক সিনেমা, যুদ্ধের সিনেমা নাকি মা ও ছেলের টানাপড়েন, নাকি স্রেফ জাতির জন্য প্রেম- উত্তর মেলে না কোনওটারই। 

হিন্দি নয় এবার ‘আংরেজি মিডিয়াম' দিয়ে নতুন ইনিংস শুরু ইরফান খানের

রোমিও আলি বা আকবর মালিকের মতো অপ্রত্যাশিত গুপ্তচর অনেক বেশি আবেগের প্রভাবশালী চলচ্চিত্রের অধিকারী। শহিদের পরিবারের সন্তান হওয়া সত্ত্বেও, এই ব্যক্তিকে সংস্থার আস্থা অর্জনের জন্য দ্বিগুণভাবে কঠোর পরিশ্রম করতে হবে। একটি দৃশ্যে মন্ত্রিপরিষদ সচিব R&AW প্রধানকে জিজ্ঞাসা করেন, “যদি মুসলিম রাষ্ট্রের চর হিসেবে একজন মুসলিম এজেন্ট কাজ করেন, তিনি কি সম্পূর্ণরূপে বিশ্বস্ত হতে পারে?” জবাবে অন্যজন বলেন, “ওহ মেরে লিয়ে সির্ফ হিন্দুস্তানি হ্যায়, হিন্দু ইয়া মুসালমান নহি।”

h1p06tbo

রোমিও নিজের মা'কে (অলকা আমিন) ছেড়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিতে সময় নেয় না। সিনেমাটি সবরকম ভাবেই রোমিওর এই বিচ্ছেদকে আবেগময় করার চেষ্টা করলেও, কোনও অভিনেতাই নিজগুণে ততটা বিশ্বস্ত হয়ে উঠতে পারেননি।

dgbmi4ro

চলচ্চিত্রের শেষে পরিচয় আবার বদলে অভিনেতা হয়ে ওঠেন ওয়াল্টার খান। এই পর্যায়ে পৌঁছে জনের আর ফিরে আসার জায়গা নেই, না তো আমাদের আছে। এই চূড়ান্ত পর্বটি জনের নামের মতোই অদ্ভুতরকমের এবং হজম করাই কঠিন।

জন আব্রাহাম চেষ্টা করেছেন ঠিকই, তাঁর চরিত্রের জন্য মৌখিক অভিব্যক্তি কমের অভিনয় করতে হত তাঁকে, কিন্তু সেও অভিনয়ই, জন মোটেও ছুঁতে পারেননি সেই উচ্চতা। জনের পেশী চিত্রনাট্যের খাপছাড়া বিষয়টিকে মোটেও ভরতে পারেনি। মৌনি রায়, নায়কের সহকর্মী এবং প্রেমিকা, কিন্তু তাঁর চরিত্রটার বস্তুত কোনও প্রয়োজনই ছিল না। কিন্তু জ্যাকি শ্রফ এবং সিকান্দর খের দু'জনেই ছাপ তৈরি করেছেন। তবে সিনেমার কোনও রেশ রাখার গুণ ছিল না একেবারেই।




বাংলা ভাষায় বিশ্বের সকল বিনোদনের আপডেটস তথা বাংলা সিনেমার খবর, বলিউডের খবর, হলিউডের খবর, সিনেমা রিভিউস, টেলিভিশনের খবর আর গসিপ জানতে লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা ফলো করুন Twitter আর সাবস্ক্রাইব করুন YouTube
Advertisement
Advertisement