হোমটিভি

দর্শকরাও চ্যালেঞ্জ করতে পারবেন শিল্পীদের, ‘Super Singer’ সিজন ২-এ

  | January 14, 2020 22:01 IST (কলকাতা)
Super Singer

টিম সুপার সিঙ্গার

সিজন ২-এর ঘোষণায় মঙ্গলবার সাংবাদিকদের মুখোমুখি হলেন তিন বিচারক কুমার শানু, কবিতা কৃষ্ণমূর্তি, জিৎ গাঙ্গুলি। সাক্ষাৎকার কম আড্ডা বেশি এই তারকাখচিত অনুষ্ঠানের বাড়তি রোশনাই শো-এর সঞ্চালক যীশু ইউ সেনগুপ্ত।

১৬ সপ্তাহের ‘Super Singer' সিজন ১ সুপারহিট। প্রত্যাশা পূরণের জন্য সিজন ২-এর প্রত্যাশী ছিলেন সবাই। সেই আশা পূরণ হতে চলেছে খুব শিগগিরি। স্টার জলসায় ‘Super Singer'-এর সিজন ২ আসতে চলেছে। তার প্রথম পর্যায়ের টানা ১০ ঘণ্টার গ্র্যান্ড অডিশন পর্ব দর্শকেরা দেখেছেন ছোটপর্দায়। সিজন ২-এর ঘোষণায় মঙ্গলবার সাংবাদিকদের মুখোমুখি হলেন তিন বিচারক কুমার শানু, কবিতা কৃষ্ণমূর্তি, জিৎ গাঙ্গুলি। সাক্ষাৎকার কম আড্ডা বেশি এই তারকাখচিত অনুষ্ঠানের বাড়তি রোশনাই শো-এর সঞ্চালক Jisshu U Sengupta। এবং অবশ্যই এই রিয়েলিটি শো-এর জনক শুভঙ্কর চট্টোপাধ্যায়। সেখানেই শুভঙ্কর জানালেন, কোনও দর্শক যদি মনে করেন তিনি প্রতিযোগীদের থেকেও ভালো গান করেন তাহলে তিনি চ্যালেঞ্জ ছুঁড়তে পারবেন। বদলে তিনি সুযোগ পাবেন এই শো-এ প্রতিযোগী হিসেবে অংশ নেওয়ার। একই সঙ্গে প্রযোজক-পরিচালক আরও জানালেন, এই মঞ্চ গানের পাশাপাশি বাজনাতেও যাঁরা দক্ষ তাঁদের আরও নিখুঁত করবে। সারা ভারত থেকে সেরা শিল্পীদের দিয়ে তৈরি করা হবে সেরা ১৪ জনকে। মাসে একবার এলিমেনিশেন বা বাছাই পর্বে বাদ যাবেন একজন প্রতিযোগী। সারা রাজ্য থেকে লক্ষ লক্ষ ছেলেমেয়ে অংশ নিয়েছিলেন অডিশনে তাঁদের থেকে ২৮ জনকে বেছে নেওয়া হয় প্রথম পর্বে। দ্বিতীয় বাছাই পর্বে আরও সূক্ষ্ম বিশ্লেষণের পর গ্র্যান্ড অডিশন পর্বে এসে সেরা ১৪ জনকে বেছে নেন আশা ভোঁসলে, কুণাল গাঞ্জেওয়ালা, শান। আর সিজনের তিন বিচারক তো ছিলেনই। প্রতিযোগিতার শেষে বিজেতাদের জন্য অবশ্যই থাকবে বড় মাপের পুরস্কার। এবং তাঁদের ভবিষ্যতের জন্য আর কী করা যায় তা নিয়ে ভাবছে চ্যানেল। 

urelft18


রিয়েলিটি শো নিয়ে নিজেদের মত জানালেন কবিতা কৃষ্ণমূর্তি, কুমার শানু, জিৎ গাঙ্গুলিও। কবিতা কৃষ্ণমূর্তি বললেন, 'নয়ের দশকের জুটি আমি আর কুমার শানু। সঞ্জয় লীল বনশালির খামোশি দিয়ে একসঙ্গে পথ চলা শুরু। ই শো-এ অংশ নিয়ে সেই সম্পর্ক আরও দৃঢ় হল। আমার সময়ে মেয়েরা ততটাও গানবাজনা করতেন না। বাড়ি থেকেও অনুমতি পেতেন না। ভালো লাগছে, এখন মেয়েরা অনেক বেশি করে অংশ নিচ্ছেন। প্রতিযোগিতায় হার-জিৎ আছেই। তাই যাঁরা শীর্ষে পৌঁছোতে পারবেন না তাঁদের জন্য এখন থেকেই পরামর্শ, দমে যাবেন না। একটা প্রতিযোগিতায় হার মানে জীবনে হেরে যাওয়া নয়। আমি কিন্তু প্রথম প্রতিযোগিতায় জিততে পারিনি। তারপরেও প্রায় ৩৫ বছরের ওপর ইন্ডাস্ট্রিতে আছি।' সুরকার জিৎ গাঙ্গুলি ধন্যবাদ জানান চ্যানেলকে, আগামী প্রজন্মকে এই বিশেষ সুযোগ করে দেওয়ার জন্য। একই সঙ্গে জানান, তাঁরা এই সুযোগ থেকে বঞ্চিত ছিলেন। এখানে গান থাকবে। বাজনাও থাকবে। যাঁরা গানের থেকেও বাজনা বাজাতে ভালোবাসেন তাঁকা যাতে ভবিষ্যতে সেই বাজনাকেই পেশা এবং প্যাশন হিসেবে বেছে নিতে পারেন সেদিকে সজাগ নজর থাকবে। এই স্টেজ থেকে বেরোবেন গান এবং বাজনায় স্বয়ংসম্পূর্ণ একজন শিল্পী। যাঁকে ভবিষ্যতে কারোর দরজায় দরজায় ফিরতে হবে না।তাই এখানে প্রতিযোগিতার থেকেও ভবিষ্যত শিল্পী গড়ার কাজে তাঁরা মন দিচ্ছেন বেশি। অনেকটা আর্য যুগের ব্রহ্মচর্য আশ্রম বা গুরুকুলের মতো।

১০ বছর পরে ছোটপর্দায় পার্নো, ঋষি কৌশিকের সঙ্গে নতুন জুটি


কুমার শানু জানান, তাঁরাও ছোট থেকে কাউকে না কাউকে অনুসরণ করে বড় হয়েছেন। তাই তাঁদের কাছে থেকেও প্রতিযোগীরা যাতে কিছু শিখে যেতে পারেন, সেই দিকে সবার আগে নজর দেবেন। তাই এটি প্রতিযোগিতীর মঞ্চ কম। শিক্ষার অঙ্গন বেশি।

সঞ্চালকের দৃষ্টিভঙ্গি থেকে যীশু বলেন, আমরা যাঁরা শিল্পের সঙ্গে যুক্ত তাঁদের মাথা নয়, হৃদয় বেশি কাজ করে। তাই সেই শিল্পী আরও উৎকৃষ্ট হয় যখন মন খুলে কিছু করতে পারেন। আমি সঞ্চালনার সুযোগ পেলে ভীষণ খুশি হই, কারণ এখানে আমার আমিকে মেলে ধরার সুযোগ পাই। কোনও নির্দেশকের নির্দিষ্ট চরিত্রে অভিনয় করতে হয় না। তাই চেষ্টা করি হাসি-মজায় সকলকে মাতিয়ে রাখতে। কারণ, এই জিনিসগুলো আমাদের জীবন থেকে একদম হারিয়ে যাচ্ছে।


বাংলা ভাষায় বিশ্বের সকল বিনোদনের আপডেটস তথা বাংলা সিনেমার খবর, বলিউডের খবর, হলিউডের খবর, সিনেমা রিভিউস, টেলিভিশনের খবর আর গসিপ জানতে লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা ফলো করুন Twitter আর সাবস্ক্রাইব করুন YouTube
Advertisement
Advertisement