হোমবলিউড

কোন যোগা সুস্মিতা সেনকে জটিল রোগ থেকে মুক্তি দিয়েছিল? দেখুন ভিডিওতে

তিনি আরও লিখেছেন, "মনকে শক্ত করে সেই পথে শরীরকে চালিত করতে নানচাকু যোগা শুরু করি। ফের আক্রমণাত্মক হয়ে উঠি, বেদনা গুলো সব মিলিয়ে যেতে শুরু করে। আগের ছন্দে ফিরে আসি। নিজেকে নিজেই সুস্থ করি। অ্যাড্রিনালিন গ্রন্থি আবার সাড়া দেওয়া শুরু করে। স্টেরয়েড-মুক্ত হয়ে উঠি। ২০১৯ পর্যন্ত শরীরে আর কোনও রোগের উপসর্গ নেই।"

  | May 17, 2020 17:07 IST (মুম্বই)
Sushmita Sen

সেই ভিডিওর একটা স্থিরচিত্রে সুস্মিতা সেন।(সৌজন্য: YouTube)

Highlights

  • ২০১৪ অ্যাডিসন ডিজিজ গ্রাস করেছিল সুস্মিতা সেনকে
  • শরীরকে অকারণে ক্লান্ত করে দেয় এই রোগ, বন্ধ হয়ে যায় অ্যাড্রিনালিন নিঃসরণ
  • নানচাকু যোগা করে এই রোগ থেকে মুক্তি পেয়েছিলেন সুস্মিতা

অ্যাডিসন ডিজিজ (Addison's Disease) অর্থাৎ স্বয়ংক্রিয় রোগ প্রতিরোধ পরিস্থিতি। এই ডিজিজ আমার বা আপনার শরীরে স্বয়ংক্রিয় ভাবে বাসা বাঁধে। উপসর্গ হিসেবে দেখা যায় অশক্ত শরীর, দুর্বলতা, খিটখিটে চরিত্র, কাজের প্রতি অনীহা আর চোখের তলায় কালি। ছয় বছর আগে এই রোগে আক্রান্ত হয়েছিলেন প্রাক্তন বিশ্বসুন্দরী সুস্মিতা সেন।  তাঁর সেই দুর্দিনের প্রসঙ্গ রবিবার ইউটিউবে প্রকাশ করলেন সুস্মিতা, সঙ্গে একটা ভিডিও। সেই ভিডিওতে দেখা গিয়েছে নানচাকু (Nan-Chaku Mediation) যোগা তাঁকে রোগমুক্ত করেছে। নিজের ইউটিউব ভিডিওতে (A Youtube Video) সেই অব্যর্থ যোগার ভিডিও পোস্ট করে সুস্মিতা (Sushmita Sen) লেখেন, "২০১৪ সালে অ্যাডিসন ডিজিজ আমাকে গ্রাস করেছিল। ক্লান্তি আমার শরীরকে ন্যুব্জ করেছিল। শরীর স্বাভাবিক অ্যাড্রিনালিন নিঃসরণ বন্ধ করে দিয়েছিল। শারীরিক মানসিক বেদনায় আমি বিধ্বস্ত হয়ে পড়েছিলাম। তখনই সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম ঘুরে আমাকে দাঁড়াতেই হবে।" জানা গিয়েছে, টানা চার বছর ধরে তিনি এই যোগা করেছেন। তারপর ২০১৯ সালে রোগমুক্ত হয়েছেন।  

তিনি আরও লিখেছেন, "মন শক্ত করে সেই পথে শরীরকে চালিত করতে নানচাকু যোগা শুরু করি। ফের আক্রমণাত্মক হয়ে উঠি, বেদনাগুলো সব মিলিয়ে যেতে শুরু করে। আগের ছন্দে ফিরে আসি। নিজেকে নিজেই সুস্থ করি। অ্যাড্রিনালিন গ্রন্থি আবার সাড়া দেওয়া শুরু করে। স্টেরয়েড-মুক্ত হয়ে উঠি। ২০১৯-এর পর থেকে শরীরে আর কোনও রোগের উপসর্গ নেই।" তাঁর মতে, "একজন মানুষ তাঁর শরীরকে যতটা চেনে, আর কেউ বাইরে থেকে ততটা চেনে না। তাই শরীর কী বলতে চায় সেটা শুনতে হবে। শরীরই তোমাকে যোদ্ধা তৈরি করবে। তাই কখনও হাল ছেড় না।" নিজের গুরুকে ধন্যবাদ জানিয়ে প্রাক্তন এই বিশ্বসুন্দরী লিখেছেন, আমার গুরু নূপুর শিকারেকে ধন্যবাদ। প্রতিকুল সময়ে পাশে থাকার জন্য।

দেখুন সেই ভিডিও:


১৯৯৪ সালে মিস ইউনিভার্স হয়েছিলেন সুস্মিতা সেন। ১৯৯৬ সালে দস্তক ছবি দিয়ে বলিউডে তাঁর অভিষেক। এরপর ম্যা হু না, বিবি নম্বর-ওয়ান, বাস্তুশাস্ত্র, নো প্রবলেম-এর মতো জনপ্রিয় ছবিতে অভিনয় করেছেন সুস্মিতা সেন। 


বাংলা ভাষায় বিশ্বের সকল বিনোদনের আপডেটস তথা বাংলা সিনেমার খবর, বলিউডের খবর, হলিউডের খবর, সিনেমা রিভিউস, টেলিভিশনের খবর আর গসিপ জানতে লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা ফলো করুন Twitter আর সাবস্ক্রাইব করুন YouTube
 
Advertisement
Advertisement
Listen to the latest songs, only on JioSaavn.com